আপনার আশে পাশের বিভিন্ন ঘটনা-দূর্ঘটনা, প্রকৃতি পরিবেশ ও সংস্কৃতি অনুষ্ঠান এর ছবি তুলে পাঠিয়ে দিন- [email protected]

ট্রেন দুঘর্টনার আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেন পল্লী চিকিৎসক মহব্বত!


সোহেল রানা: রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের শোলাকুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ট্রেন দুঘর্টনার খবর শুনে ঔষধপত্র নিয়ে ছুটে আসেন জামালপুরের পল্লী চিকিৎসক কুদরত-ই রহমান মহব্বত। ট্রেন দুঘর্টনায় আহতদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করেন। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েই তাদেরকে পাঠিয়ে দেন হাসপাতালে। তাকে ডাকতে হয়নি। নিজেই এসে চিকিৎসা দিয়েছেন। কোন খরচের চিন্তাও করেননি তিনি। এরকম যে কোন দুঘর্টনায় চিকিৎসকদের এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

আমরা রাজ্জাক খান জুট মিলের ১৪-১৫জন শ্রমিক কাজ শেষে মিলের ইঞ্জিন চালিত কটাং গাড়ীতে বাড়ী ফিরছিলাম। শোলাকুড়া স্কুলের সামনে থেকে রেললাইনে উঠার আগেই ট্রেন আসতে দেখেছিলাম আমরা। ড্রাইভারও দেখেছিল ট্রেনটি আসতে, আমরা থামাতে বললেও কোন কথা না শুনেই আমাদেরকে বসে থাকতে বলল। এসময় দ্রুতগামী ট্রেন আমাদের গাড়ীটিকে ধাক্কা দিয়ে টেনে হিচড়ে নিয়ে গেলে প্রায় আধা কিলোমিটার। তার আগেই আমি লাফ দিয়ে নেমে পড়ি গাড়ি থেকে। দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে যাওয়া জুট মিলের শ্রমিক  পপি বলেন এসব কথা।

ঘটনাস্থলে থাকা প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার বেলা পৌনে ১টার দিকে কালুখালী থেকে ছেড়ে আসা ভাটিয়াপাড়াগামী ট্রেন উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের শোলাকুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌছালে কোন গেটম্যান না থাকায় ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজেলার চরনওপাড়া রাজ্জাক জুট মিলের ইঞ্জিন চালিত শ্রমিক পরিবহনের কটাং গাড়ী প্রবেশ করে। এসময় দুঘর্টনার শিকার হয় গাড়িটি।

ঘটনাস্থলেই উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের বাঘুটিয়া গ্রামের শহীদ শেখের ছেলে সরোয়ার শেখ (২০), এলেম সরদারের ছেলে ইমরান সরদার (২২), জামালপুর ইউনিয়নের তুলশীবরাট গ্রামের শুকুর আলী শেখের ছেলে শাকিল শেখ (২০) নিহত হয়।

আহত হয়েছেন, জামালপুর ইউনিয়নের আলোকদিয়া গ্রামের হারুন শেখের স্ত্রী পপি খাতুন (৩৫), তুলশীবরাট গ্রামের জহুরুল মিয়া স্ত্রী রাফেজা বেগম (২২), মিঠুন বিশ্বাসের স্ত্রী শেফালী বেগম (২৪), বিল্লাল মন্ডলের স্ত্রী আছিয়া বেগম (২৫)সহ অন্তত ১০জন আহত হয়েছে। আহতদেরকে মধুখালী হাসপাতালে নিলে তাদেরকে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফরিদপুর হাসপাতালে প্রেরন করে।

বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম আজমল হুদা জানান, কালুখালী থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনটি ভাটিয়াপাড়া অভিমুখে যাচ্ছিল। বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের শোলাকুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে রেল ক্রসিংয়ে কোন গেটম্যান না থাকায় রাজ্জাক খান জুট মিলের কটাং গাড়ী রাস্তা পার হওয়ার সময় সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে ৩জন নিহত হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুলিশ ও বালিয়াকান্দি ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি শান্ত করেন। রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক মোঃ শওকত আলী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজা, রাজবাড়ী সহকারী পুলিশ সুপার ফজলুল করিম ঘটনাস্থলে যান। পরে রাজবাড়ী জিআরপি থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজা জানান, রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক ঘটনাস্থলে আসছেন। আমরা নিহতদের বাড়ীতে এখনই যাব আমাদের পক্ষ থেকে যা করা যায় আমরা করব।

প্রসঙ্গত: শুক্রবার রাজবাড়ীর কালুখালী-ভাটিয়াপাড়া ট্রেন রুটের বালিয়াকান্দিতে ট্রেন ও শ্রমিক টানা ইঞ্জিন চালিত কটাং গাড়ীর সংঘর্ষে জুট মিলের ৩ শ্রমিক নিহত ও ১০জন আহত হয়েছে।

No comments: