আপনার আশে পাশের বিভিন্ন ঘটনা-দূর্ঘটনা, প্রকৃতি পরিবেশ ও সংস্কৃতি অনুষ্ঠান এর ছবি তুলে পাঠিয়ে দিন- [email protected]

ভারত বাংলাদেশ সম্পর্ক খুবই শক্তিশালী, সাতক্ষীরায় ভারতীয় হাইকমিশনার বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের দ্রুত ও নিরাপদ প্রত্যাবাসন দেখতে চায় ভারত


মাধব দত্ত, সাতক্ষীরা ঃ  বাংলাদোশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার শ্রী হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেন বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের দ্রুত ও নিরাপদ প্রত্যাবাসন দেখতে চায় ভারত। এই লক্ষ্যে বাংলাদেশ ও ভারতের পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ে এরই মধ্যে একটি চুক্তি হয়েছে। খুব সত্ত্বরই  কিছু সংখ্যক রোহিঙ্গা মিয়ানমারে প্রত্যাবাসিত হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

শ্রিংলা রোববার বিকেল তিনটায় সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার গাজিরহাটে এক কোটি ৫৩ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রণব মঠের অতিথি ভবন নির্মাণ কাজ উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে  এসব কথা বলেন।
 তিনি বলেন ১৯৭১ সালে এক কোটি বাঙ্গালিকে ভারত যেমন আশ্রয় ও সহায়তা দিয়েছিল এবারও বাংলাদেশ ঠিক একইভাবে ১১ লাখ নির্যাতিত  রোহিঙ্গাকে তার দেশে আশ্রয় দিয়ে মানবতার পরিচয় দিয়েছে। তাদের প্রত্যাবাসনে ভারতের যেমন সহযোগিতা থাকবে তেমনি অন্যান্য দেশেরও উচিত বাংলাদেশকে সহায়তা দেওয়া। তিনি বলেন আমরা সব সময় এ ধরনের নির্যাতিতদের গ্রহণ করতে প্রস্তুত রয়েছি। কাজটি মোটেও ছোট নয় বলে উল্লেখ করেন তিনি। ভারত বাংলাদেশের সুসময় ও দুঃসময়ে পাশে আছে উল্লেখ করে শ্রিংলা বলেন এখন দুই দেশের মধ্যে খুবই শক্তিশালী সম্পর্ক বিরাজ করছে।
হর্ষবর্ধন শ্রিংলা আরও বলেন ভারত সফরকালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন ‘দুই দেশ এখন সম্পর্কের সোনালী অধ্যায় পার করছে’। এই সম্পর্কের আরও অনেক উন্নতি হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন  আমরা এতে খুব খুশী। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেমন বলেছেন ধর্ম যার যার উৎসব সবার । আমি নিজেও তা দেখেছি। কারণ এদেশের সব সম্প্রদায়ের মানুষ নিজ নিজ ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করছে। তিনি বলেন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ভারতীয় সেনারা মুক্তিযুদ্ধে সহায়তা দিতে পেরে গর্বিত মনে করে। তিনি বলেন বন্ধু দেশ বাংলাদেশে ভারত সরকারের দেওয়া ৩৫০ কোটি টাকায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মান সংস্কারের  কাজ চলছে।
 সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ডা. আফম রুহুল হক এমপি।

এর আগে পৌনে একটায় তিনি শ্যামনগর ঈশ্বরীপুরের রাজা প্রতাপাতিদ্যের ঐতিহাসিক নিদর্শণ যশোরেশ্বরী কালিমন্দিরে পুজা দেন । এ সময় তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের সদস্যদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনারা কেই দেশ ছেড়ে যাবেন না। এ দেশ আপনাদের। ভারত বাংলাদেশ অকৃত্রিম বন্ধু দেশ। সৌহার্দপুর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে দু’ দেশের সম্পর্ক  চিরদিন অটুট থাকুক এটা ভারত দেখতে চায়।
ভারতীয় হাইকমিশনার এর আগে সাতক্ষীরার শ্যামনগরের ঈশ্বরীপুরে যশোরেশ্বরী কালী মন্দির পরিদর্শন করেন এবং সেখানে পুজা দেন । তিনি মন্দির সংস্কারে অর্থ বরাদ্দ দেন। এ উপলক্ষ্যে রোববার সকাল সাড়ে ১১টায় তিনি সাতক্ষীরা সার্কিট হাউজে উপস্থিত হন। সেখানে জেলা মন্দির সমিতি, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ, বাংলাদেশ পুজা উদযাপন পরিষদ, জয় মহাপ্রভু সেবক সংঘসহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ তাকে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।
  ভারতীয় হাইকমিশনারের সফর সঙ্গী ছিলেন ফাষ্ট সেক্রেটারী  রাজেশ ইউক, শিশির কোটারী ও নবনীতা চক্রবর্তী।

No comments: