আপনার আশে পাশের বিভিন্ন ঘটনা-দূর্ঘটনা, প্রকৃতি পরিবেশ ও সংস্কৃতি অনুষ্ঠান এর ছবি তুলে পাঠিয়ে দিন- [email protected]

বৈধ অস্ত্রের অবৈধ ব্যবহার!


রাজবাড়ী প্রতিনিধি ঃ দক্ষিনাঞ্চলের প্রবেশদ্বর রাজবাড়ী সদর উপজেলার গোয়ালন্দ মোড়। মোড়টিতে দুটি বাস স্ট্যান্ড, দুটি রিকসা ও মাহেদ্র স্ট্যান্ড শত শত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যে কারনে সব সময় কয়েকশত মানুষ এখানে অবস্থান করে। সোমবার সকাল নয়টার দিকে হঠাৎ পরপর কয়েকটি গুলির শব্দে ছোটা ছুটি করতে থাকে মানুষ। এ সময় এলাকায় আতংঙ্ক ছড়িয়ে পরে।
এ সময় রাজবাড়ী থেকে লোকাল বাসে চড়ে ফরিদুপর যাচ্ছিলেন রাজবাড়ীর ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক নেতা শিবনাথ বিশ্বাস, তিনি জানান, গোয়ালন্দে মোড়ে গুলির শব্দে যখন মানুষ ছুটাছুটি করছিলো আমি তখন বাসের মধ্যে বসেছিলাম। বাস থেকে নেমে গিয়ে দেখি কালো গেঞ্জি পরিহিত একটি লোক হাতে তার রিভলবার। এই অবস্থা আরেকজন লোককে মারপিট আর গালি গালাজ করছে। হাতে আগ্নেয়াস্ত্র থাকায় কেউ এগিয়ে আসছে না। আমি ভয়ে ভয়ে কয়েকটি ছবি তুলি ও ভিডিও করে আমার ফেইসবুকে আপলোড করি।
এ ঘটনায় আহলাদিপুর হাইওয়ে থানার পুলিশ সদস্যরা এগিয়ে আসলে দ্রুত প্রাইভেটকার নিয়ে দৌলতদিয়া ঘাটের দিকে রওনা হয়। পুলিশ সদস্যরা মকবুলের দোকান এলাকা থেকে গাড়িসহ তাদের আটক করে খানখানাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে আসে।
আটককৃত ব্যক্তির নাম ওমর ফারুখ তিনি গোপালগঞ্জ জেলার বাসিন্দা তবে ঢাকা ব্যাবসা করেন।
আহলাদিপুর হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদ পারভেজ জানান, সোমবার সকালে ঢাকা থেকে আসা দুটি প্রাইভেট গোয়ালন্দ মোড় পার হওয়ার সময় একটা সাথে আর একটার ধাক্কা লাগে। এ সময় প্রাইভেটকার মালিক ওমর ফারুখ অপর প্রাইভেটকার চালক হাবিবকে মারপিট করতে থাকে। এ সময় স্থানীয়রা ওমর ফারুখ ও তার ছেলেকে উত্তম মধ্যম দিলে ওমর ফারুখ তার লাইসেন্সকৃত পিস্তল দিয়ে কয়েকটি ফাকা গুলি ছোরে।
রাজবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ স্বপন কুমার মজুমদার জানান, গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় গুলির খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে ছুটে যাই এ সময় আহলাদিপুর হাইওয়ে থানার ওসি, খানখানাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দেওর আইসি উপস্থিত ছিলেন। অভিযুক্ত ওমর ফারুখের দাবী তার ছেলেকে জনতার হাত থেকে বাচাতে তিনি ফাকা গুলি ছুরেছেন। পরে অন্য প্রাইভেটকারের চালক ও ওমর ফারুখের মধ্যে আপস মিমাংসা করে দিয়েছে।

No comments: