Saturday, January 19, 2019

ঝিনাইদহে ঐহিত্যবাহী গরুর গাড়ির দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত


বসির আহাম্মেদ, ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ আধুনিক সভ্যতার এই যুগে দিন দিন কমে যাচ্ছে গরুর গাড়ীর ব্যবহার। কলের লাঙ্গল দখল করে নিচ্ছে গরুর লাঙ্গল। এখন শুধু গোয়াল বেশির ভাগ গোয়াল ঘরে দেখা মেলে গরুর। আর গরুর গাড়ী চোখে পড়ে খুবই কম। হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে আর নতুন প্রজন্মকে জানান দিতে ঝিনাইদহের বেতাই গ্রামে অনুষ্ঠিত হলো গরুর গাড়ির দৌড় প্রতিযোগিতা। প্রতিযোগিতা দেখতে সকাল থেকে দুর-দুরান্ত থেকে ছুটে আসে হাজার হাজার মানুষ। উদ্দেশ্য একটিই প্রতি বছরের ন্যায় দেখবেন গরুর গাড়ির দৌড় প্রতিযোগিতা।সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মালিতার আয়োজনে বেতাই গ্রামের মাঠে অনুষ্ঠিত হয় এ প্রতিযোগিতা। এতে যশোর, ঝিনাইদহ, মাগুরা, ও চুয়াডাঙ্গা থেকে বাছাই করা মোট ২০ টি গরুর গাড়ি এই দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।
এদিকে, দারুণ এ আয়োজন দেখে মুগ্ধ জেলার ক্রীড়াপ্রেমী দর্শকরা। ঝিনাইদহ শহরের মডার্ন মোড় থেকে আসা খন্দকার ফারুকুজ্জামান ফরিদ বলেন, গরুর গাড়ি দৌড় প্রতিযোগিতা যে এ সুন্দর হতে পাড়ে তা না দেখলে বুঝতে পারতাম না। দেশের প্রতিটি জেলায় এ ধরনের আয়োজন করা উচিত।
ঝিনাইদহ সরকারি কেসি কলেজের অনার্স পড়–য়া ছাত্রী লাইলা পারভীন বলেন, এই প্রথম তিনি গরুর গাড়ীর দৌড় প্রতিযোগিতা দেখছেন। এ দেখে মুগ্ধ তিনি।সাংস্কৃতিক কর্মী সোহেলি আহম্মেদ বলেন, বাংলার এই এতিহ্য বর্তমান ও আগামী প্রজন্মের সামনে তুলে ধরার জন্য এ আয়োজন প্রতি বছর করা উচিত। এ ব্যাপারে আয়োজক নাসির উদ্দিন মালিতা বলেন, গরুকে গৃহপালিত প্রাণী হিসেবেই আমরা জেনে থাকি। গায়ের মাঠে আবহমান কাল থেকেই কৃষকের হালচাষের অবিচ্ছেদ্যে অংশ এই নিরীহ প্রাণীটি। মানব জীবনের পরতে পরতেও ছড়িয়ে আছে গরুর উপকারিতার কথা। তবে, মাঝে মাঝে এই প্রাণীটি হয়ে ওঠে বিনোদনেরও অংশ। তাই গ্রাম বাংলার সহজ সরল মানুষকে আনন্দ দিতে আর গ্রামীন ঐতিহ্য ধরে রাখতেই এ আয়োজন করা হয়েছে।
তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা শেষে সবাইকে পেছনে ফেলে প্রথম হয় বেতাই গ্রামের ডালিম কুমারের গরুর গাড়ি। পরে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কে) কনক কুমার দাস, সদর থানার ওসি (তদন্ত) এমদাদুল হক, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খালেদা খানম, সদর থানার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম হিরনসহ স্থানীয়রা উপস্থিত ছিলেন।